গত রমজানের চেয়ে গরুর মাংসের দাম বাড়ল ৫৫ টাকা

নতুন করে আবার মাংসের দাম নির্ধারণ করেছে সিটি করপোরেশন (ডিসিসি)। নগর ভবনে আজ মঙ্গলবার মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে রমজানে প্রতি কেজি দেশি গরুর মাংসের দাম ৪৭৫ টাকা বিক্রির সিদ্ধান্তের কথা জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন।

গত বছরের রমজান মাসে গরুর মাংসের দর ৪২০ টাকা ছিল বলে জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম। সেই হিসাবে এবার প্রতি কেজি গরুর মাংসে বাড়তি ৫৫ টাকা গুনতে হবে ক্রেতাদের।

এ ছাড়া নতুন দর অনুযায়ী বিদেশি জাতের (বোল্ডার) প্রতি কেজি গরুর মাংস ৪৪০ টাকা, মহিষের ৪৪০ ও খাসির মাংস ৭২৫ টাকায় বিক্রি করা হবে। ৬২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে ভেড়া ও ছাগলের মাংস।
এভাবে মাংসের দাম বৃদ্ধিকে অযৌক্তিক মনে করছেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ধর্মঘট করে মাংস ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ল ১০০ টাকার বেশি। তাঁরা বলেন, হাট ইজারাদারের চাঁদাবাজি বন্ধ করা গেলে ৩০০ টাকা কেজিতে গরুর মাংস বিক্রি করতে পারবেন। এভাবে মাংসের দাম নির্ধারণ করায় ধর্মঘট ও হাট ইজারাদারদের চাঁদাবাজিকে যৌক্তিক করে দেওয়া হলো। এখন ভোক্তাদের বিকল্প আমিষের সন্ধানে যাওয়া ছাড়া উপায় থাকল না।

মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, ২৬ রমজান পর্যন্ত ঢাকা মহানগর এলাকায় এ দামে মাংস বিক্রি করতে হবে। রোজার মাসে জনগণের সুবিধার কথা বিবেচনায় নিয়ে এবারের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। শুধু কাঁচাবাজারের মাংসের দোকান ছাড়াও ডিপার্টমেন্টাল স্টোরসহ মাংস বিক্রি করে, এমন সব দোকানকে এই দামেই মাংস বিক্রি করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm