ইন্দোনেশিয়ায় মূসা ইব্রাহিমের পাসপোর্ট জব্দ, গৃহবন্দী

ইন্দোনেশিয়ার পাপুয়া প্রদেশের দুর্গম পার্বত্য এলাকায় ছয় দিন আটকা থাকার পর উদ্ধার হওয়া মুসা ইব্রাহিমের পাসপোর্ট জব্দ করে রাখা হয়েছে। এমনকি তাকেসহ বাকিদেরকে সেখানকার হেলিকপ্টার কোম্পানি – এশিয়াওয়ান গৃহবন্দী করে রেখেছে বলেও জানিয়েছেন মূসা। আজ দুপুর দুইটা ১০ মিনিটে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি একথা জানিয়েছেন।

18893141_10155308378727317_7501677377366986297_n

তার ফেসবুক স্ট্যাটাসটি নিচে হুহহু তুলে ধরা হল।

“আমাদের পাসপোর্ট অবৈধভাবে বাজেয়াপ্ত করে গৃহবন্দী করে রেখেছে তিমিকা’র হেলিকপ্টার কোম্পানি – এশিয়াওয়ান (AsiaOne)।

উদ্ধার পেয়েছি বেস ক্যাম্প থেকে, কিন্তু উদ্ধার হচ্ছে না হেলি কোম্পানির হাত থেকে। অ্যাডভেঞ্চার কিন্তু এখনও শেষ হয়নি।

যে হেলিকপ্টার কোম্পানি – এশিয়াওয়ান – আমাদের বেস ক্যাম্প থেকে নিয়ে এসেছে, তারা আমাদের পাসপোর্ট অবৈধভাবে বাজেয়াপ্ত করে গৃহবন্দী করে রেখেছে। তাদের দাবি – তাদেরকে তিনবার তিমিকা থেকে বেস ক্যাম্প পর্যন্ত ফ্লাই করার খরচ দিতে হবে (১১০০০ ইউএস ডলার)। কিন্তু গতকাল রবিবার তারা নিজেরাই দেরি করে সকাল ১০টায় বেস ক্যাম্পের দিকে গিয়েছিল, ততোক্ষণে আবহাওয়া খারাপ হয়ে গিয়ে হেলিকপ্টার ফিরে এসেছে তিমিকায়, যা কি না পুরোটাই হেলিকপ্টার প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব। কারণ আমরা সকাল ৬টা থেকে প্রস্তুত ছিলাম।

আজ সোমবার তারা সকালে আমাদের বেস ক্যাম্পের পাশের একটা জায়গা থেকে প্রথমবার গিয়ে ফিরে আসে। আমরা দেখতে পেয়েছিলাম হেলিকপ্টার, কিন্তু তারা প্রথমবার উদ্ধার না করেই ফিরে আসে। দ্বিতীয়বার আমরা পতাকা হাতে নিয়ে দাঁড়িয়েছিলাম যেন হেলিকপ্টার দেখা মাত্রই তা উড়িয়ে তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারি এবং তা করেছি। এখন হেলিকপ্টার কোম্পানির কথা হলো, তাদেরকে পুরো তিনবারের টাকা দিতে হবে।

আমরা, Satyarup Siddhanta, Nandita Cn এবং আমি – ৮ হাজার ডলার পর্যন্ত দিতে রাজি হয়েছি এবং সে মোতাবেক Franky Kowaas-এর প্রতিষ্ঠান মানােডা অ্যাডভেঞ্চারকে টাকা দেয়ার প্রক্রিয়া সত্যরূপ শুরু করেছে। ইতিমধ্যে সাড়ে চার হাজার ডলার দেয়া হয়েছে। কিন্তু হেলিকপ্টার কোম্পানি এশিয়াওয়ানের জ্যাকব-এর (+628122312558) দাবি- তাকে পুরো টাকাটা (১১ হাজার ডলার) দিতে হবে।

চিন্তা করছি যে, ফিরতে পারবো তো দেশে???”

Screenshot_1

এর আগে পাপুয়া প্রদেশের দুর্গম পার্বত্য এলাকায় ছয় দিন আটকা থাকার পর উদ্ধার করা হয় বাংলাদেশের পর্বতারোহী মুসা ইব্রাহিমকে। মুসা এবং আরও কয়েকজন অভিযাত্রীর একটি দল পাপুয়া প্রদেশের মাউন্ট কার্স্টেনজ পিরামিড শৃঙ্গ আরোহণ করতে গিয়ে পথেই আটকা পড়েন।

স্থানীয় সময় রোববার তাদের উদ্ধারের জন্য হেলিকপ্টার গিয়েও আবহাওয়ার কারণে ফিরে আসতে বাধ্য হয়। তবে কয়েকঘন্টা পর আবারো উদ্ধারকারী হেলিকপ্টার পাঠানো হয় এবং বাংলাদেশ সময় ভোররাতে তদের উদ্ধার করে ইন্দোনেশিয়ার টিমিকা এয়ারপোর্টে নিয়ে আসা হয়।

টিমিকা এয়ারপোর্টে পৌঁছানোর পর নিজের ফেসবুক পেজে মুসা ইব্রাহিম সৃষ্টিকর্তাকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পোস্ট লিখেছেন।”মাত্রই টিমিকা এয়ারপোর্টে পৌঁছালাম। আল্লাহ মহান। আমরা নিরাপদে ফিরে এসেছি। দেখা হবে ইনশাল্লাহ”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm