সাত দফা কর্ম-পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন

11একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সাত দফা কর্ম-পরিকল্পনার বিস্তারিত প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন। যেখানে সংসদীয় এলাকার সীমানা পুননির্ধারন, রাজনৈতিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সাথে সংলাপের মতো বিষয়গুলো রয়েছে। দুপুরে নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ের ইটিআই মিলনায়তনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা এই কর্মপরিকল্পনা ঘোষনা করেন। এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তফসিল ঘোষনার পরই কেবল নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য ‘লেভেল পে¬য়িং ফিল্ড’ নিশ্চিত করার এখতিয়ার রাখে।
সাংবাদিক সম্মেলনের শুরুতেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা সাতদফা কর্মপরিকল্পনা প্রনয়নের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। বলেন, ২০১৯ সালের ২৯ শে জানুয়ারির মধ্যে জাতীয় নির্বাচন করতে হবে। আর সেকারনেই দেড় বছরের কম সময়ের মধ্যে তাদের সকল কাজ আঞ্জাম দিতে হবে। পরে তিনি তার নির্বাচনী রোডম্যাপ ঘোষণা করেন।
এসময় তিনি বলেন, একট সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য শুধু একটি ভাল কর্মপরিকল্পনাই্ যথেষ্ট নয় এজন্য প্রয়োজন সবার সহযোগীতা । সেই লক্ষ্যে চলতি মাসের একত্রিশ তারিখ থেকে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সবার সাথে সংলাপ শুরু করতে যাচ্ছে বলেও জানান নুরল হুদা।
তবে পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নে ঘুরে ফিরে সম্প্রতি আসম আব্দুর রবের বাসায় রাজনীতিকদেও ঘরোয়া আড্ডার বিষয়টি। এমন ঘরোয়া বৈঠকে বাধা দেয়ার কারনে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ক্ষুন্ন হচ্ছে কিনা..? এমন প্রশ্নে নুরুল হুদা বলেন, এগুলোর দায়ভার সরকারের।
তবে, পরিবেশ পরিস্থিতি যেমনই হোক একটি অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে সফল হবে বলেই মনে করছে প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm