যুক্তরাষ্ট্রে দাবানলে নিহত ১০

প্রবল বাতাসে  যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের উত্তরাঞ্চলের ওয়াইন কাউন্টিজুড়ে ছড়িয়ে পড়া দাবানলে অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

দাবানলে সোমবার ওই এলাকার শত শত বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে গেছে এবং প্রায় ২০ হাজার মানুষ তাদের বাসস্থান ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছে বলে খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।   

চলতি বছর ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলের কারণে এই প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটল বলে জানিয়েছেন অঙ্গরাজ্যটির কর্মকর্তারা। অঙ্গরাজ্যটিতে এক দশকের মধ্যে এবারই দাবানলের একটি ঘটনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হল বলে মনে করছেন তারা।   

ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর জেরি ব্রাউন নাপা, সোনোমা এবং ইউবা কাউন্টিতে জরুরি অবস্থা জারি করেছেন। অঙ্গরাজ্যটির সেরা ওয়াইন প্রস্তুতকারী এলাকাগুলোর মধ্যে এই তিনটি কাউন্টি অন্যতম।

পুরো এলাকাটি ঘন ধোঁয়ায় ঢাকা পড়ে গেছে এবং বাতাসের কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণহীনভাবে ছড়িয়ে পড়ে স্যান ফ্রান্সিসকো বে এলাকার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।  

ব্রাউন পরে উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার আরো চারটি কাউন্টি ও দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার অরেঞ্জ কাউন্টিকেও জরুরি অবস্থার আওতাভুক্ত করেন। অরেঞ্জ কাউন্টি এলাকায়ও আরেকটি দাবানল ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে।

সোনোমা কাউন্টির শেরিফ দপ্তরের তথ্যানুযায়ী সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা এখানেই ঘটেছে। আগুনজনিত কারণে এখানে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়া বন ও দাবানল নিয়ন্ত্রণ বিভাগের (ক্যালফায়ার) তথ্যানুযায়ী, নাপা কাউন্টিতে দুইজন ও মেনডোসিনো কাউন্টিতে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

ক্যালফায়ার বা স্থানীয় কর্মকর্তাদের কেউ মৃত্যুর ঘটনাগুলো সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে বিস্তারিত কিছু জানাতে পারেনি, কিন্তু ক্যালিফোর্নিয়া হাইওয়ে পেট্রলের কর্মকর্তাদের বরাতে স্যান ফ্রান্সিসকোর কেজিও-টিভি জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে একজন অন্ধ, বৃদ্ধ নারী রয়েছেন।

সোনোমা কাউন্টির সান্তা রোসা শহরে নিজ বাড়ির গাড়িপথে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে তারা।

দাবানলের কারণে সোনোমার দুটি হাসপাতাল খালি করে ফেলতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানিয়েছেন অঙ্গরাজ্যটির কর্মকর্তারা।

এক সংবাদ সম্মেলনে ক্যালফায়ারের পরিচালক কেন পিমলোট জানিয়েছেন, ওই এলাকাগুলোর প্রায় এক হাজার ৫০০ বাড়ি ও বাণিজ্যিক ভবন ধ্বংস হয়ে গেছে।

দাবানলে কিছু মানুষ আহত হয়েছেন এবং কয়েকজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm