ইভিএম বন্ধ, সেনাবাহিনীকে নামিয়ে নির্বাচন দিতে হবে: খালেদা জিয়া

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সমাবেশে আসতে সরকার বাধা দিচ্ছে। বিএনপির সমাবেশে লোক আসতে বাধা দিয়ে সরকার ছোট মনের পরিচয় দিয়েছে।

আজ রোববার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির জনসমাবেশে দলীয় চেয়ারপারসন এ কথা বলেন। ৭ নভেম্বর ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে বিএনপি এই সমাবেশের আয়োজন করেছে।

খালেদা জিয়া এখনো সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছেন। তিনি বলেন, বহুদলীয় গণতন্ত্রে মত-পথের পার্থক্য থাকবে। তবে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

প্রায় দেড় বছর পর রাজধানীতে বিএনপি এত বড় পরিসরে সমাবেশ করছে, যেখানে দলটির চেয়ারপারসন বক্তব্য দিচ্ছেন।

বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘সরকারের বিরুদ্ধে মতপ্রকাশ করলে, মানুষকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তার প্রমাণ প্রধান বিচারপতি। তাকে জোর করে বাইরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

সরকারের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘শুধু বিদেশে পাঠিয়েই নয়, বাইরে লোক পাঠিয়ে তাকে পদত্যাগও করানো হয়েছে। তিনি (বিচারপতি এস কে সিনহা) বলেছিলেন- সরকার বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণে নিতে চায় -এ কথার কারণে আজকে তাকে বিদায় নিতে হলো।’

নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বলেন, অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন করা নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব। নির্বাচন নিয়ে ইসি কোনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দিতে পারে না।নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন, ইভিএম বন্ধ , সেনাবাহিনীকে নামিয়ে নির্বাচন দিতে হবে।

‘এমনকি সেনাবাহিনীকে ক্ষমতা দিতে হবে যাতে তারা কাজ করতে পারে। আর সেনাবাহিনী না দেওয়া হলে ক্ষমতাসীন দল কেন্দ্র দখল করে মানুষের ওপর অত্যাচার চালাবে। ভোট চুরি করবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm