মৌনতা ভেঙে টাইম ম্যাগাজিনের ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’

আবিদ আজম, রেডিও টুডে।

‘মি-টু’ এই একটি মাত্র চিহ্ণ আর একটি শব্দ ব্যবহার করে চলতি বছর নারীর প্রতি সহিংসতা, হয়রানি, নির্যাতনরোধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিরোধের ডাকে শামিল হয় বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ। নারীকে সাহস দেয় ‘লজ্জাকে ক্রোধে’ রুপান্তরিত করে নীরবতা ভেঙে জবাব দেওয়ার। যৌন অত্যাচার এবং নিগ্রহের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী যারা এই মৌনতা ভঙ্গ করেছেন তাদের সাহসিকতার স্বীকৃতি দিয়ে বিশ্বখ্যাত সাময়িকী টাইম ম্যাগাজিন ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’ বা বছরের সেরা ব্যক্তিত্বের মর্যাদা দিয়েছে।
টাইম ম্যাগাজিন বলছে, গত কয়েক দশকের মধ্যে এত দ্রুততার সাথে কোনো সামাজিক পরিবর্তনের দৃষ্টান্ত এই প্রথম। এর আগে, মুলতঃ বিভিন্ন দেশে রাজনীতি, ব্যবসা, শিল্প-সংস্কৃতির জগতের বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে যৌন অত্যাচারের অনেকগুলো অভিযোগ নিয়ে এগিয়ে এসেছেন বেশ কজন নারী এবং পুরুষ। তারপর প্রধানত টুইটারে মি-টু হ্যাশট্যাগে একে একে অনেক নারী এবং বেশ কজন পুরুষও নাম করা এবং প্রভাবশালী বিভিন্ন ব্যক্তিত্বের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ নিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেন। তারা মুখোমুখি হন বিচারের।
সাহস করে এগিয়ে এসেছেন এমন কজন নারীর ছবিও টাইম ম্যাগাজিনের প্র”ছদে জায়গা পেয়েছে। এছাড়া এ বছর ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’র তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম। গত বছর এই খেতাব পেয়েছিলেন তিনি। ১৯২৭ সাল থেকে টাইম ম্যাগাজিন বছরের সেরা ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত করে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm