ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক মীর মোশাররফ হোসেনের মহাপ্রয়ান দিবস আজ

গাজী হাবীবা আফরোজ, রেডিও টুডে।

মীর মোশাররফ হোসেন – ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক। যিনি উনবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে বাংলা গদ্যের উন্মেষকালে বিশেষ ভুমিকা রেখেছিলেন। তার সৃষ্টিকর্ম বাঙালি মুসলমান সমাজে আধুনিক সাহিত্য ধারার সুচনা করে।
১৮৪৭ সালের ১৩ নভেম্বর তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের কুষ্টিয়া জেলার লাহিনীপাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। লেখাপড়ার শুরুটা কুষ্টিয়ায় হলেও লেখাপড়া আর চাকুরির সুবাদে মোশাররফ হোসেন ঘুরে বেড়িয়েছেন বিভিন্ন স্থনে।
বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এই সাহিত্যিক গল্প, উপন্যাস, নাটক, প্রহসন, কাব্য ও প্রবন্ধ রচনা করে আধুিনক বাংলা সাহিত্যে সমৃদ্ধ ধারার প্রবর্তন করেন। কারবালা প্রান্তরে মহানবীর দৌহিত্র ঈমাম হোসাইন রাদিআল্লাহু তায়ালা আনহুর বিয়োগান্তক ঘটনা নিয়ে লেখা উপন্যাস ‘বিষাদ সিন্ধু’ তার শ্রেষ্ঠ রচনা। গদ্যে রচিত তার লেখা ‘রত্মাবতী’ প্রথম কোন বাঙালি মুসলমান রচিত গল্প; নাটক বসন্ত কুমারীও তারই অনবদ্য সহিত্য কর্ম। গো-জীবন গ্রš’ রচনার জন্য বৃটিশ সরকারের রোষানলে পড়েন সমাজ সচেতন এই সাহিত্যিক। এছাড়া উদাসিন পথিকের মনের কথা, জমীদার দর্পণ, এর উপায় কি, গোড়াই ব্রিজ অথবা গৌরী সেতুসহ উলে¬খযোগ্য বহু সৃষ্টিকর্ম রয়েছে তার।
১৯১২ সালের আজকের দিনে দেলদুয়ার এস্টেটে ম্যানেজার থাকাকালে মীর মোশাররফ হোসেন পরলোক গমন করেন। প্রয়াণদিবসে বাংলা সাহিত্যের অন্যতম এই দিকপালকে স্মরণ করছি গভীর শ্রদ্ধায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm