গানের মানিককে নিয়ে বর্ণিল এক সুরেলা রজনী

সুরে-ছন্দে আর কথামালার আনন্দে সৌরভ ছড়ালো স্মরণীয় এক রজনী। মুগ্ধতার পরশ মাখা সে রাতে বাইরে ছিলো নাগরিক ব্যস্ততা ; আর হলরুমের ভেতরে চলছিলো জীবনমুখী শুদ্ধ ও কল্যানমুখী সঙ্গীত নিয়ে অনন্য আয়োজন। যেখানে ঝলমল করছিলো প্রেমময় অথচ পবিত্রতার মায়াবী আলোকলতা; স্বর্গ থেকেই কি নেমে এসেছিলো সুরের যাদুকরী ঘ্রাণ? আনন্দমুখর ও জমকালো সে আয়োজনে স্টার ভয়েস ২০১৭ নির্বাচিত হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের ইমতিয়াজ আহমেদ। যৌথভাবে রানার আপ হয়েছেন লামনিরহাটের এবি সিদ্দিক এবং ঢাকার আব্দুল্লাহ বিন ফায়েজ।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বাংলামোটরের বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বসে স্টার ভয়েস কনটেস্ট এর গালা রাউন্ডের জমজমাট আসর । নিজের কথা, সুর ও গাওয়া গান দিয়ে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন তারুণ্যের নন্দিত কণ্ঠশিল্পী, লেখক ও সাংবাদিক আমিরুল মোমেনীন মানিক। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ আজাদ রহমান।

যারা  উপস্থিত ছিলেন  

উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ইসমত কাদির গামা, বাংলাদেশ বাঁশ, বেত ও পাটি শিল্প ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এসএম জিল্লুর রহমান, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ গাওসুল আজম, টাইম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন শান্ত, হ্যাভেন টিউন স্টুডিও লাইভের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গাজী আনাস রওশন।

মিডিয়ার মানুষ  

সঙ্গীত পরিচালক ও লেখক তানভীর তারেক, দৈনিক যুগান্তরের বিনোদন সম্পাদক এফ আই দীপু, গীতিকার রকিব হোসেন, দৈনিক জনকণ্ঠের বিনোদন প্রধান সাজু আহমেদ, শিল্পী গোলাম মাওলা, শ্লোগান শিল্পী আসাদুজ্জামান রনি। মঞ্চে এসে ১ মিনিট করে শুভকামনাও জানান তারা। তবে দর্শক সারিতে বসে মাঝেমাঝেই তারা খুনসুটিতে মেতে উঠেন।

বিচারকদের প্রাণবন্ত উপস্থিতি 

উপস্থিত ছিলেন স্টার ভয়েসের সেলিব্রেটি জাজ প্রখ্যাত গীতিকবি শহীদুল্লাহ ফরায়জী, স্টার মেকার জাজ জনপ্রিয় লেখক, নাট্যকার ও গীতিকার অনুরূপ আইচ, স্টার ভয়েস জাজ লেখক, নাট্যকার ও গীতিকার রেজাউর রহমান রিজভী এবং এ্যাসোসিয়েট জাজ রেডিও কর্মী ও লেখক আবিদ আজম।

শিল্পী আগুনের তীব্র বাক্যবান 

আগুন ভাই মঞ্চে এসে দারুণ এ উদ্যোগের জন্য জড়িয়ে ধরেন মানিককে। এরপর পরিবেশন করেন, পৃথিবীতে সুখ বলে যদি কিছু থেকেই থাকে, এর নাম ভালোবাসা এর নাম প্রেম। দর্শকদের অনুরোধে গেয়ে শোনান আরেকটি গান । এরপরই তিনি সমাজে চলমান নানা অসঙ্গতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় পিনপতন নিরব হয় হলরুম।

শহীদুল্লাহ ফরায়েজীর কন্ঠে দ্রোহের সুর 

‘সোনা দানা দামী গহনা’খ্যাত বরেণ্য গীতিকবি শহীদুল্লাহ ফরায়েজী চলমান সমাজের নানাবিধ অবক্ষয় ও অসঙ্গতির দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, এ সময়ে প্রয়োজন নৈতিকতা ও জীবনমুখী গান। শুধুমাত্র প্রেমের গান রচনা করে সমাজের কোন উপকার হবেনা। তিনি অন্য শিল্পীদের মানিকের এ সঙ্গীতযজ্ঞ ও জীবনমুখী গানের অনুসঙ্গ থেকে শিক্ষা গ্রহণের আহ্বান জানান।

পুষ্পিতার হৃদয় ছোঁয়া গান 

 ক্ষুদে গানরাজ ২০১৫ এর চ্যাম্পিয়ন পুষ্পিতা অপূর্ব সুরে শোনায় দুটি গান। আমার মন পাখিটা এবং হারজিত চিরদিন থাকবেই, এ দুটি গান মুগ্ধ করে সবাইকে।

তানজীনা রুমা এবং রাফাতের দারুণ পারফরমেন্স 

তানজিনা রুমা তার জনপ্রিয় গান সমীরণ গেয়ে মাতিয়ে দেন দর্শকদের। আর শাহরিয়ার রাফাতের মাওলা গানের দীর্ঘ টানে সত্যি যেন স্রষ্টার প্রতি ভালোবাসা ঝরে পড়ে; আধ্যাত্মিক এক অনুভব হৃদয়ে ঝংকার দিয়ে ওঠে।

বিদ্বানের হাসির তুফান 

আব্দুল গনি বিদ্বান মঞ্চে উঠার পরই হাসতে থাকে অডিয়েন্স। তার কৌতুকগুলো ছিলো দারুণ মজাদার।

মানিকের গানে কাঁদলেন সবাই 

শেষ দিকে দুটি গান পরিবেশন করেন আমিরুল মোমেনীন মানিক। ‘মা যে দশমাস দশদিন’ শিরোনামে তার মায়ের গান শুনে অতিথি এবং দর্শকরা হু হু করে কাঁদছিলেন। মানিকের এ গানটিকে মায়ের গানগুলোর ভেতর শ্রেষ্ঠতম বলেও অভিহিত করেন ক’জন অতিথি। আমিরুল মোমেনীন মানিককে এ সময় উপস্থিত শ্রোতারা ‘গানের মানিক’ বলে আখ্যায়িত করেন।

আরো যারা  গিয়েছিলেন  

নির্মাতা সৈয়দ আলী আহসান লিটন, নাট্যকার আব্দুল্লাহ হিল কাফী, গীতিকার ও সুরকার মাহফুজ বিল্লাহ শাহী, কবি ইমরান মাহফুজ, গীতিকার মাহমুদুল হাসান, সাংবাদিক ও মডেল আদিত্য রূপু।

যারা ছিলেন বাস্তবায়নের প্রাণ 

শিল্পী মঈনুদ্দীন বকুল, শিল্পী হাবীব মাযহার, কবি মোজাম্মেল প্রধান, শিল্পী জায়েদ হোসাইন, শিল্পী ফরহাদ হোসেন, অনুষ্ঠান প্রযোজক আমিনূর রহমান লিটন, আল আমিন মোঃ আল আমিন হোসাইন, তানিম সৌরভসহ অনেকেই। চার প্রতিযোগির পরিবেশনায় ৪ টি গানও ছিলো মনোমুগ্ধকর।

পুরো অনুষ্ঠানটির প্রাণবন্ত উপস্থাপন করেন জনপ্রিয় আরজে টুটুল জহিরুল ইসলাম ও রেবেকা তাসমিন। ইউটিউব ভিত্তিক এই প্রতিযোগিতায় গান জমা পড়েছিলো ১৯২৫ টি। সেখান থেকে চূড়ান্ত পর্বের জন্য উত্তীর্ণ হন ৫ জন। প্রধান অতিথি আজাদ রহমান বলেন, শুদ্ধ সংস্কৃতিকে ছড়িয়ে দিতে না পারা গেলে এই প্রজন্মকে রক্ষা করা কঠিন। তিনি শিল্পীদেরকে বাংলার শেকড়ের সংস্কৃতি চর্চার আহবান জানান।

সেভেন্টিওয়ান টেলিমিডিয়ার আয়োজনে স্টার ভয়েস কনটেস্টের ডিজাইন করেন জায়েদ হাসনাইন এবং মোজাম্মেল প্রধান। কনটেস্ট এর মিডিয়া পার্টনার চেঞ্জ টিভি ও আইচ নিউজ ডট নেট।চূড়ান্ত পর্বের ৫ প্রতিযোগি ছিলেন : আব্বাস খান (কোলকাতা), সাজ্জাদ মনির (ঢাকা), ইমতিয়াজ আহমেদ ( নারায়ণগঞ্জ), আব্দুল্লাহ বিন ফায়েজ (ঢাকা) এবং এবি সিদ্দিক (লালমনিরহাট)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm