ভোট চলছে গাজীপুর

প্রথমবারের মত দলীয় প্রতীকে সিল দিয়ে সিটি করপোরেশনের নতুন নেতৃত্ব বেছে নিচ্ছেন গাজীপুরের ১১ লাখ ৩৭ হাজার ভোটার।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে এ সিটি করপোরেশনের ৪২৫টি ভোট কেন্দ্রে একযোগে ভোট শুরু হয়েছে বলে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছে জানিয়ে এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল বলেছেন, শেষ পর্যন্ত ভালোভাবেই ভোট শেষ হবে বলে তিনি আশা করছেন।

“কারো কোনো অভিযোগ এখনও পাইনি। বিএনপির প্রার্থীর কাছ থেকে ভোটের আগে দুয়েকটি অভিযোগ পাওয়া গিয়েছিল, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছি।”

আবহাওয়া অফিস ভোটের দিন বৃষ্টির আভাস দিয়ে রেখেছে গাজীপুরে। সকালে ভোট শুরুর আগে বিভিন্ন এলাকায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিও হয়েছে। তবে ভোট শুরুর পর প্রথম তিন ঘণ্টায় নির্বাচনের পরিবেশে ব্যাঘাত ঘটাতে পারেনি আবহওয়ায়।

দিনের শুরুতে বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, ভোটারদের উপস্থিতি মোটামুটি। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ভোটারের উপস্থিতি আরও বাড়বে এবং বিকাল ৪টা পর্যন্ত স্বতঃস্ফূর্ত ও শান্তিপূর্ণভাবেই ভোট চলবে বলে নির্বাচনী কর্মকর্তারা আশা করছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ছয় মাস আগে এ নির্বাচনকে ঘিরে সব মহলের নজর এখন গাজীপুরের দিকে। ক্ষমতায় এবং ক্ষমতার বাইরে থাকা প্রধান দুই দলের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনও এ নির্বাচনে নিজেদের প্রমাণ করতে চায়।

কারচুপির আশঙ্কা প্রকাশ করে বিএনপি ইতোমধ্যে হুঁশিয়ারি দিয়েছে, সেই ধরনের কিছু হলে আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় অন্য তিন সিটির নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করবে তারা।

অন্যদিকে তার প্রতিক্রিয়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা বলেছেন, দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপি একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে ইসিকে হেয় করতে এসব অভিযোগ তুলছে।

নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থাগুলোর একটি মোর্চা ইলেকশন ওয়ারর্কিং গ্রুপের (ইডব্লিউজি) পরিচালক আব্দুল আলীম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছেন, তারাও গাজীপুরের ভোটের দিকে তাকিয়ে আছেন।

“সর্বশেষ খুলনার নির্বাচনে কিছু অনিয়ম দেখা গেছে, যদিও তা ফলাফলে তেমন প্রভাব পড়েনি। কিন্তু গাজীপুরে একটা মডেল নির্বাচন দেখতে চাই আমরা।”

এ সিটির মেয়র পদের প্রার্থী হিসেবে রাজনীতিতে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ বিএনপির হাসান উদ্দিন সরকারের বিপরীতে এবার ৩৯ বছর বয়সী জাহাঙ্গীর আলমকে বেছে নিয়ে আওয়ামী লীগ।

৭০ বছর বয়সী মুক্তিযোদ্ধা হাসান সরকার এরশাদের সামরিক শাসনামলে দুই দফায় সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি দুই মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন টঙ্গী পৌরসভা চেয়ারম্যান হিসাবে। বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হাসান সরকার এক মেয়াদে গাজীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও ছিলেন।

তার চেয়ে ৩১ বছর কম বয়সী ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম গত মেয়র নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী হতে চেয়ে আলোচনায় আসেন।

গতবার বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী আবদুল মান্নানের কাছে হেরে যাওয়া আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আজমত উল্লাহ খানকে বাদ দিয়ে এবার তরুণ এই নেতাকে নির্বাচনী টিকেট দেয় ক্ষমতাসীন দল।

অন্য মেয়র প্রার্থীরা হলেন- মিনার প্রতীকে ইসলামী ঐক্য জোটের ফজলুর রহমান, হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন, মোমবাতি প্রতীকে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন, কাস্তে প্রতীকে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কাজী মো. রুহুল আমিন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদের প্রতীক টেবিল ঘড়ি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Radio Today 89.6fm